তিরিশুলে খাপ – বুলাদির সপ্নপুরন


আসুন না এক দান লুডো খেলি

কেলানে KB
ওরে বাপ !! কি ভাবে বলল এ কথা। বাঞ্চো………এর বাপ মায়ের ঠিক নেই।
আচ্ছা ওকে যে খিস্তি দিচ্ছিস … ওর লেখা পড়েছিস কোনদিন?
বাল পরবে ওর লেখা।

বুদ্ধি GB
এতদিন তো কার্ল মার্ক্স কে বিক্রি করে খেয়েছে। এখন সেই উল্টো দলে প্রোলেটারিয়েত দের লিরিক্স লিখতে হল। আসলে বাংলাদেশে মার্কেট পাবার জন্য এই পদক্ষেপ বা এই লেখা।
এত কঠিন কথা বলেন কি করে? কার্ল মার্ক্স  দোকানের শোকেসে, প্রোলেটারিয়েত (এরই বা মানে কি?), এর মধ্যে বাংলাদেশ এলো কোথা থেকে? আচ্ছা বলুনতো কার্ল মার্ক্স কোন দেশের লোক? কি বলছেন দাদা রাশিয়া? এই না হলে আপনি এত ভালো ইংলিশ বলেন। আমি তাই ভাবতাম আপনি এত ভালো ইংলিশ বলেন কি ভাবে? (আমি মানে বং-ব্লজ্ঞার, একদম কনফার্ম, এটা যারা পড়ছেন এখন তারা অনেকেই গুগল এ গিয়ে উইকিপেডিয়াতে দেখছেন কার্ল মার্ক্স সত্যি করে কোন দেশের লোক। দয়া করে কষ্ট করবেননা, উনি, আসলে জার্মান। জার্মান থেকে রুশ হওয়াটা আসলে আফিম, ঢুকিয়ে দেয়া রাজনীতি)

মুখ মণ্ডল TB (বুঝলেন না তো? ফেসবুকের TB TB মাল)
দৃশ্য – পীরিত ১
তুমি কি ভাবছ বাবলাদা? তুমিতো একটু কাটা ভক্ত, তুমি এসব বুঝবেনা। যে বলে গরু আর মোষের মধ্যে কি ফারাক? তাকে এসব জিজ্ঞাসা করা মানে বৃথা।
যা কেলো !! তাহলে জিজ্ঞাসা করছিস কেন?
বাবলা দা একবার চিল্লিয়ে বলতে পারবে “ভারত মাতা কি জয়”?
এটা আবার কি?
জানি তুমি পারবেনা। (আসলে এটাও এক ধরনের আফিম)

দৃশ্য – পীরিত ২
কি ইন্দ্র দাদা, তোমার প্রিয় কবি কিসব করছে?
মানে? আমার প্রিয় কবি? কবে বলেছি? কোনদিনই ওর লেখা পড়িনি। তাই এটা নিয়ে মন্তব্য করা আমার কি সাজে?
এড়িয়ে যাচ্ছ তো? বুঝতে পেরেছ ভুল করেছে।
আজ্ঞে না। ইচ্ছা হলে পড়বে আর না হলে পড়বেনা, সিম্পল।

দৃশ্য – পীরিত ৩
কি শুরু হয়েছে বলুনতো? কিসব করছে?
মানে?
এই সব লিখছে? এই ভাবে ওনাকে বিদ্ধ করা কি উচিৎ? আসলে মানুষের টপিক্‌ চাই টপিক্‌ বুঝলেন। কাশ্মীর গেলো তো কঙ্কাল কাণ্ড পেলো। কঙ্কাল মানে ওই কঙ্কাল নয়, এটা পার্কস্ট্রীটের পার্থ। তারপর ওই মেয়েছেলেটার কতো গুলো স্বামী !! রোজ এক পিস্‌ করে স্বামী বেরোচ্ছে, বাপরে !! এখন পেলো জাতকের কবিতা।
এতই যখন বোঝেন !! আমাকে খোঁচা মারছেন কেন? চুলকচ্ছে ?
এ বাবা একি ভাষা আপনার?
সে কি খাপে খাপ পল্টুর বাপ নিয়ে কথা বলবেন অথচ মুখ খারাপ করবেননা, তা কি হয়? খেলবো হোলি রঙ দেবনা?

দৃশ্য – পীরিত ৪
বালটারতো বাচ্চা কাঁচ্চা নেই? আসলে খাপ পরতে পরতে খাপের ওপর ঘেন্না থেকে খাপ নিয়ে লেখা। এর থেকে কালিকাদা অনেক বেটার লোক।
বাবা !! কালিকা কে দাদা বলছিস তুই? চিনতিস নাকি?
না না !! সবাই ফেসবুকে দাদা বলছে, তাই আমিও বলছি।
ওঃ সবই মায়া !!

মানুষের শুনে শুনে আরাম নেবার পালা

কিরে তোরা সাতদিনে একুশবার খাট ভাঙলি? দুষ্টু” NASA ক্যাপস্যুলের অ্যাডটা বেশ ভালো করে দেখিসতো। ওটাও !! কিন্তু দারুন লাগে, আরে ওই ভোজপুরি গানটা “জাপানি তেল লাগাকে মারেম গোরি, খচা খচ্‌”। ভিডিওটা দেখেছিস? দারুন কিন্তু ! ছেলেটা মেয়েটার পোয়ায় হাত দিয়ে নাচটাও হেব্বি।

“যে কোন পুরুষ হয়ে উঠবে উপযুক্ত স্বামী” ব্যাবহার করুন বন্দুক ক্যাপস্যুল (এটাও হেব্বি)। কিরে কালু? চম্পা কি বলে এখন? চম্পার সহজ উত্তর “পুরনো গাড়ি আর নতুন ইঞ্জিন”
আমার আজ আরেকটা অ্যাড এর কথা মনে পড়ছে “আপকে পাস নিরোধ হ্যাঁয় কেয়া?” (হাম আপকে কাহা কাহা রেহতে হ্যাঁয়, এর মতন)। তখন ছোট ছিলাম, এত না বুঝলেও, বেশ লাগতো কিন্তু অ্যাডটা। বিশেষ করে একটা সময় খাপের যে খাপ, মানে সেই খাপের ওপরের ছবি গুলো দেখতে হেব্বি লাগতো। তাই যারা এগুলো বিক্রি করতো তাদের দোকানে মাঝে মাঝেই ঢপের জিনিস কিনতে যেতাম।

সত্যি হল, আগে জানতামই না ওটাকে কি বলে (উফ চিরকালের শিশু)। জানতাম ওটা নিরোধ !! যেমন, ডিটারজেন্ট যে ভাবে সার্ফ হয়ে রয়ে গেছে ঠিক তেমনি আরকি। একটু বড় হবার পর জানলাম মানে যখন দফা ৪২০ বা ডেবনিয়ার ইত্যাদি ইত্যাদি রাজার বাড়ির চিলেকোঠায় জন্ম নিল, ঠিক তার একটু আগে ওটা ছিল “খাপ” তাই আর আমার লাইফে রাখাল সাজা হলনা। (মহারাজ ওটা যে নিরোধ! তাতে কি? নেই বিরোধ। তাহলে বিরোধ কোথায়? খাপের ভেতরের মালটা নিয়ে।)

এবার আসা যাক সেই বিখ্যাত গানের কথায় “ইক পরদেসি মেরা দিল লে গায়া” সেই মন মাতান সুরে আজ মুধুবালা নেই, তাহলে কে আছে? পরে আছে লাল রঙের বাক্সে, লাল রঙের বাক্সে মধুবালা? কি বলছেন, মাথার ঠিক আছেতো? ওই সাপ মারার ওষুধের কথা বলছেন নাকি? না ভুল করছেন ওটা সাপ মারার ওষুধ নয়। তাহলে কি? তেল, কিন্তু এ সে তেল নয়? তাহলে কি? গোপন করবেন না প্লিস……… ওঃ যে চীনা তেল ভাই। চীনা হলে কি হবে, নাকি হেব্বি টেঁকসই। এই তেলটা কি দাদা চীনেবাদাম থেকে পাওয়া যায়?

আমার মনে একটা প্রশ্ন জাগল কালরাতে, AK47 যে বানিয়েছে নিশ্চয়ই তার কাছে এটার পেটেন্ট আছে। কিন্তু যার অস্ত্র নিয়ে এত কথা, তার কি ওটার পেটেন্ট আছে? থাকলেই বা কি আসে যায়? উনি তো কোন কেস্‌ করেননি? তাহলে ওটার ওপরে কে কি পরালো তা নিয়ে এত মাথা ব্যথা কেন? আমার মনেপরে গেলো সেই স্লোগানের কথা, বন্দুকের বেয়নেটের ওপরে খাপের কথা। একটা মোটা সাইজের বই পড়তে শুরু করেছিলাম, বাপরে সত্যি বলতে সেক্স এনসাইক্লোপেডিয়া মনে হল। এর পর আরেকটা মোটা, লম্বা (বক্র নয়) বই পড়া শুরু করলাম। সে কি? হেঃ রামু, যাকে আপামর জনতা ভালবাসে সে কিনা নাকি নিজের বৌকে আগুনে নিয়ে খেলতে বলেছে। কেন রে কিসের আশায়? তোর নামে মন্দির হবে বলে? চিন্তা করিস না ভাই, ওরা মনে হয় করবে। কারা? যারা ট্রেনের কামরার দেয়ালে, সোজা, বক্র, স্বপ্নদোষের পাশে আপনার ছবি লাগিয়ে রাখে। তারাইতো এখন দেশের রাজা আর আমার প্রভু।

অনেক হয়েছে বংশ বৃদ্ধি, এবার আমার বন্ধুর বৌ মালার কথা না বললেই নয়। দীপ হেব্বি রেগে যেত যদি আমরা মালাকে “মালা-ডি” বলে ডাকতাম। কেন রেগে যেত বুঝিনা বাপু, সামান্য মালাকে ডি এর মালা পরালে? শেষটা হতো অবশ্য, মালা-ডি মালা-ডি সেই বিখ্যাত গান দিয়ে।

অনেকতো হল মোটা, লম্বার কথা, এবার একটু গোল গোলের কথা বলি। ছিঃ ছিঃ এত নোংরা ভাববেন না আমাকে। আমি ফুটবলের কথা বলেছি। শেষ পাতে ফুটবল না হলে কি বাঙ্গালির জমে? এবার কিন্তু আর্জেন্টিনার যারা ভক্ত তারা একটু কষ্ট পাবেন, যদি আপনি গেঁয়ো যোগীর ভক্ত হন তাহলে কিন্তু মহামুশকিল। বুয়েনস্‌ আইরেসে যা আছে তা দেখলে ! থুড়ি, যদি ভেঙ্গে পরে তাহলে পুরো কেস্‌ (স্যাটা স্যাট কুমড়োর গ্যাঁট)। দেখতে চান সেই বিরাট খাপ্‌ (এরও স্ট্যাচু হতে পারে, শালা এই হয়ে জন্মালে ভালো হতো)। অমলকান্তি রোদ্দুর হতে চেয়েছিল ! এখন আমি কি হতে চাই?

Condom on Obelisk, Buenos Aires

আসল সমস্যাটা কি সেই ধৃ নামক ধাতুতে, যাহা মানুষ ধারন করে? না ওটাকে আফিমের মতো ব্যবহার করা হয় যুগ যুগ ধরে, কগ্‌নিটিভ রেভোলিউশান হলেই হয়তো ভালো হত। এতক্ষণ যে নষ্টামিটা আমি করলাম, সেটা আসলে নিজেকে বাঁচাবার বা ভালো থাকার জন্য করা। কে যেন বলেছিল “তুমিও মানুষ আমিও মানুষ, তফাৎ শুধু শিরদাঁড়ায়”। ওটা নেই কিনা, তাই এতটা পথ ঘুরে আসা মাত্র।

 

স্বত্ব © বংব্লগার আপনার যদি মনে হয় বা ইচ্ছা হয় তাহলে আপনি এই লেখাটি শেয়ার করতে পারেন কিন্তু দয়াকরে এর লেখকের নাম ইন্দ্রজিৎ দাস উল্লেখ করতে ভুলবেন না। ভুলে যাবেননা চৌর্যবৃত্তি মহাদায়, যদি পড়েন ধরা।

যদি আপনি আপনার নিজের ছবি এখানে দেখতে পান এবং তাতে যদি আপনার কোন রকম আপত্তি থাকে তাহলে অবশ্যই ই-মেল করে আপনি উপযুক্ত প্রমাণসহ আপনার দাবি জানাতে পারেন।দাবিটি ন্যায্য প্রমাণিত হলে, সে ক্ষেত্রে ছবিটি সরিয়ে ফেলা হবে।

বং ব্লগার

"বং ব্লগার" একজন আস্ত পাগল, অশিক্ষিত, জ্ঞানগম্য হীন ট্রাভেলার। পথের সম্বল সামান্য পুঁজি যা মাঝে মাঝে জোটেও না, আর মনে অজানাকে জানার ও দেখার তীব্র আকাঙ্ক্ষা। হয়ত, সবটাই ভোরের স্বপ্ন, তাতে কি যায় আসে? হয়তো সবটাই কাল্পনিক, তাতেও কি কিছু যায় আসে? সবটা মিলিয়েই আমি চিৎকার করে বলতে চাই, আমি "বং ব্লগার"।

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published.

eleven + three =

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.